নতুন করিডর তৈরির ঘোষণা: বাড়বে ইরান ও আফগানিস্তানের মধ্যে বাণিজ্যিক ও ব্যবসায়িক লেনদেন

ইরান ও আফগানিস্তানের মধ্যে বাণিজ্য এবং অর্থনৈতিক লেনদেন বাড়াতে একটি নতুন ট্রানজিট রুট তৈরির ঘোষণা দিয়েছেন তালেবান কর্মকর্তারা। তালেবানের শিল্প ও বাণিজ্য বিভাগের প্রধান মৌলভি ফাজেল মোহাম্মদ ফাজলির জানিয়েছেন, সিল্ক ব্রিজ রোডের পাশে একটি নতুন রাস্তা নির্মাণের সাথে সাথে ইরান ও আফগানিস্তানের মধ্যে বাণিজ্য ত্বরান্বিত হবে।

ইরান এবং আফগানিস্তানের মধ্যে বাণিজ্য সহযোগিতার উন্নয়নের জন্য যোগাযোগের বিভিন্ন উপায় রয়েছে, সিল্ক সেতু ছাড়াও হেরাত-খাফ রেললাইনের কথা উল্লেখ করা যেতে পারে এবং লাইনের চারটি অংশ রয়েছে। ইরান সরকার এই রেললাইনের তিনটি সেকশন নির্মাণ করেছে। চতুর্থ অংশটি আফগানিস্তানের ভিতরে পড়েছে যার নির্মাণ কাজ বন্ধ রয়েছে বলে জানা গেছে।

যদিও আফগানিস্তানের সাম্প্রতিক রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের পর  কাবুল এবং তেহরানের মধ্যে বাণিজ্য বিনিময় ২০ ভাগ কমেছে তবে তালেবান সরকার সম্প্রতি ইরানের সঙ্গে বাণিজ্য সম্পর্ক জোরদার করার দৃঢ় সংকল্প ব্যক্ত করেছে। দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্য তিন বিলিয়ন ডলার পর্যন্ত উন্নীত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে তালেবান সরকার ।অতীতে ইরান ও আফগানিস্তানের মধ্যে বাণিজ্যের পরিমাণ ৫ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করা হয়েছিল। 

আফগান বিশেষজ্ঞ সাকিবা হাশেমি বলেছেন: "ইরান সবসময় আফগানিস্তানের জনগণের পাশে ছিল এবং বর্তমান পরিস্থিতি দেশটির জনগণের জন্য সহযোগিতা আরো বেশি প্রয়োজন। এছাড়া সাংস্কৃতিক এবং নিরাপত্তা মতো সাধারণ বিষয়ে ইরান ও আফগানিস্তানকে দিনদিন কাছাকাছি নিয়ে আসছে বলেও মনে করেন সাকিবা হাশেমি। 

সমুদ্রে আফগানিস্তানের প্রবেশাধিকারের সুবিধা না থাকায় দেশটিকে আন্তর্জাতিক বাজারে প্রবেশের জন্য ইরানের পরিবহন রুট ব্যবহার করতে হয়। চাবাহার বন্দরের মাধ্যমে আফগানিস্তান তার এ প্রয়োজন ভালোভাবেই মিটাতে পারেন বিশেষজ্ঞরা মনে করেন। 

আফগানিস্তান বিষয়ক বিশেষজ্ঞ আমিন রেজাইনজাদ বলেছেন, "তালেবানরা এ দেশের ক্ষমতায় পুনর্বহাল হওয়ার পর আফগানিস্তান থেকে অনেক দেশ নিজেদেরকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে। ইসলামিক প্রজাতন্ত্র ইরান একমাত্র দেশ যে মানবিক দৃষ্টিকোন থেকে আফগান জনগণকে সার্বিকভাবে সাহায্যে এগিয়ে এসেছে।  

যাইহোক, ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরান তার সীমান্ত এলাকাগুলোতে নিরাপত্তা জোরদার করায় আফগান ব্যবসায়ী শ্রেনীর মনে শান্তি ফিরে এসেছে। তারা এখন ইরানের সাথে যোগাযোগের পথ প্রসারিত করে তাদের বাণিজ্য ও লেনদেনের পরিমাণ বাড়ানোর সুযোগ পেতে পারেন।
খবর পার্সটুৃডে/এনবিএস/২০২২/একে news