বিধানসভায় চা, ঘুগনি, ঝালমুড়ি বেচে মমতাকে কটাক্ষ বিজেপি বিধায়কদের

 প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী চা ওয়ালা বিজেপির কাছে ব্র‌্যান্ডিং। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) চা, চপ, মুড়ি বিক্রির কথা বললে তা বিজেপির কাছে হয়ে যায় কটাক্ষ। এমনটাই দেখা গেল বৃহস্পতিবারও। প্রতীকী প্রতিবাদ হিসেবে এদিন বিধানসভার সামনে হাঁকডাক করে চা, ঘুগনি ও ঝালমুড়ি বিক্রি করতে দেখা গেল বিজেপি বিধায়কদের।

একটু খেটে খেতে হবে, যুবসমাজকে এই বার্তা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। খড়্গপুরের কর্মসূচিতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা পরামর্শ দিয়েছেন, ‘এক হাজার টাকা জোগাড় করে একটা কেটলি কিনুন আর মাটির ভাঁড় নিন। সঙ্গে কিছু বিস্কুট নিন। আস্তে আস্তে বাড়বে।’ কী ভাবে বাড়বে? তার রাস্তাও বাতলে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী (Mamata Banerjee)। তাঁর কথায়, ‘প্রথম সপ্তাহে বিস্কুট নিলেন। তার পরের সপ্তাহে মাকে বললেন, ‘একটু ঘুগনি তৈরি করে দাও।’ তার পরের সপ্তাহে একটু তেলেভাজা করলেন। একটা টুল আর একটা টেবিল নিয়ে বসলেন। এই তো পুজো আসছে সামনে। দেখবেন লোককে দিয়ে কুলোতে পারবেন না! আজকাল এত বিক্রি আছে!

শুধু তাই নয় মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‌পুজোয় ঘুরবেনও সঙ্গে একটা কৌটো নিয়ে যান। একটু বাদাম দিয়ে দিন, একটু ছোলা দিয়ে দিন। দেখবেন দারুণ বিক্রি হবে।’‌

মুখ্যমন্ত্রীর ওই বক্তব্যের তুমুল সমালোচনা করেছে বিজেপি। তাঁদের অভিযোগ, দিদির আত্মীয়রা কোটি কোটি টাকার মালিক হবেন আর, রাজ্যের শিক্ষিত বেকার যুবক-যুবতীরা ফুটপাতে বসে ঝালমুড়ি, চা, ঘুগনি বিক্রি করবে?‌ বিজেপি বিধায়কদের গলায় ঝোলানো ছিল কালো প্ল্যাকার্ড। যাতে লেখা ছিল, ‘‌আমার খোকা লুটবে বঙ্গ, করবে দেদার চুরি/‌ তোমার খোকা বেচবে পুজোয় ঘুগনি–ঝালমুড়ি।’‌
এদিনের প্রতিবাদে সামিল হয়েছিলেন চাকদহের বিধায়ক বঙ্কিম ঘোষ, মনোজ টিগ্গা–সহ একাধিক বিধায়ক। বঙ্কিম বলেন, ‘‌চা, চপ, মুড়ি বিক্রি করে কোটিপতি হওয়া যায়, একথা বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। শুধু রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ও তাঁর পরিবারের সবাই কোটিপতি হবেন তা হয় না। আমাদেরও ইচ্ছে হয় কোটিপতি হতে। তাই আমরা ওঁর পরামর্শ মেনে এসব বিক্রি করছি। রাজ্যের যুব সমাজকেও বলছি চা ঘুগনি বিক্রি করে কোটিপতি হতে।’‌

খবর দ্য ওয়ালের /এনবিএস/২০২২/একে news