পশ্চিম এশিয়ায় ইতিবাচক পরিবর্তনে নেতানিয়াহু ও ঋষির ক্ষোভ বিচিত্র নয়: কানয়ানি

ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেছেন: মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চলে ইতিবাচক অগ্রগতিতে ব্রিটেন ও ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রীর ক্ষোভ প্রকাশে বিস্ময়ের কিছু নেই। লন্ডনে ইহুদিবাদী ইসরাইল ও ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকের প্রতিক্রিয়ায় নাসের কানয়ানি ওই মন্তব্য করেন।

ইহুদিবাদী ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর ব্রিটেন সফরের প্রতিবাদে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ভবনের সামনে শত শত মানুষ বিক্ষোভ করেছে। বিক্ষোভকারীরা ইসরাইলের পতন কামনা করে স্লোগান দেয় এবং ইসরাইলের প্রতি তাদের ঘৃণা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে। একইসঙ্গে বিক্ষোভকারীরা অবৈধ ইহুদিবাদী সরকারের প্রতি ব্রিটিশ সরকারের সমর্থনেরও নিন্দা জানায়।

নাসের কানয়ানি আজ (শনিবার) ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক এবং ইহুদিবাদী প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর মধ্যে বৈঠকের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন: পশ্চিম এশিয়া অঞ্চলে ইতিবাচক উন্নয়ন দেখে ওই দুই নেতা ক্ষুব্ধ ও অসন্তুষ্ট। সুতরাং তারা যে আঞ্চলিক উন্নয়নের প্রক্রিয়াকে দুর্বল ও ধ্বংস করার চেষ্টা চালাতে পারে-তাতে অবাক হবার কিছু নেই।

বার্তা সংস্থা ইরনা জানিয়েছে, নাসের কানয়ানি বলেছেন: ইতিহাসের চরম বিড়ম্বনা হলো ব্রিটিশ এবং ইহুদিবাদী শাসনব্যবস্থা। অন্য দেশের জমি দখল করে, দৈনন্দিন অপরাধযজ্ঞ চালিয়ে এবং শিশুহত্যা করে এমনকি পারমাণবিক অস্ত্রের ভাণ্ডার তৈরি করা সত্ত্বেও অবৈধ ইহুদিবাদী সরকার নির্লজ্জের মতো এনপিটি চুক্তিও স্বাক্ষর করে নি। অপরদিকে ব্রিটিশ শাসনব্যবস্থার কাজ হলো বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে শুধু যুদ্ধ ও সংঘর্ষ বাধানো। এইসব যুদ্ধবাজ সরকার নির্লজ্জভাবে ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানকে এ অঞ্চলে অস্থিতিশীলতার জন্য অভিযুক্ত করে। যদিও ইরানই হলো মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চলে স্থিতিশীলতার নোঙ্গর।
খবর পার্সটুড /এনবিএস/২০২৩/একে

news