‘জনগণকে বিভ্রান্ত করায় ইমরান খানকে হত্যা করতে এসেছিলাম’

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও পাকিস্তান তেহরিক-ই ইনসাফ (পিটিআই) দলের প্রধান ইমরান খানের ওপর হামলার ঘটনায় আটক এক সন্দেহভাজন হামলাকারী নিরাপত্তাবাহিনীর কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

পাকিস্তানের জিও টিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, 'আমি শুধু ইমরান খানকে হত্যা করতে এসেছিলাম। আমি এটা করেছি কারণ তিনি জনগণকে বিভ্রান্ত করছিলেন। আমি এটা মেনে নিতে পারিনি।’

কবে থেকে হামলার পরিকল্পনা করেছিলেন- এই প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, লাহোর থেকে ইমরান যখন বিক্ষোভ শুরু করেন তখন থেকেই তিনি ‍পরিকল্পনা করা শুরু করেন। তার সঙ্গে এই পরিকল্পনায় আর কেউ জড়িত নয় বলেও জানান তিনি।

সন্দেহভাজন হামলাকারী জানান, মোটরসাইকেলে তিনি ওয়াজিরাবাদে এসেছিলেন। সাইকেলটি তার মামার দোকানে রেখেছিলেন।

বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে বলা হচ্ছে, সমাবেশস্থলে দুইজন হামলাকারী ছিলেন। তাদের একজনের হাতে পিস্তল এবং একজনের হাতে স্বয়ংক্রিয় রাইফেল ছিল।

এদিকে ইমরানের খানের জ্যেষ্ঠ সহযোগী রওফ হাসান জানায়, ইমরান খানের ওপর হামলায় জড়িতদের একজন নিরাপত্তারক্ষীদের গুলিতে নিহত হয়েছেন। সেসময় অপর একজনকে আটক করেছে দেশটির পুলিশ।

পাকিস্তানে নতুন করে নির্বাচনের ‍দাবিতে গত শুক্রবার লাহোর থেকে রাজধানী ইসলামাবাদ অভিমুখে লংমার্চ শুরু করেন ইমরান খান। পথে বৃহস্পতিবার পাঞ্জাবের ওয়াজিরাবাদে গুলিবিদ্ধ হন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী।

পায়ে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তাকে কাছেই লাহোরের শওকত খানম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহত হলেও তিনি আশঙ্কা মুক্ত বলে তার দলে তেহরিক-ই-ইনসাফ পাকিস্তানের (পিটিআই) পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। 

ইমরান খানের এক সময়ের স্বাস্থ্য সহকারী ডাঃ ফয়সাল সুলতান হাসপাতালের বাইরে সংবাদকর্মীদের বলেন, ‘‘পিটিআই চেয়ারম্যান ইমরান খানের অবস্থা স্থিতিশীল। তার পায়ের এক্স-রে ও স্ক্যান করে দেখা গেছে, ভেতরে গুলির টুকরো রয়েছে।
” খবর পার্সটুডে/এনবিএস/২০২২/একে

news