ক্ষেপণাস্ত্র প্রযুক্তিতে আন্তর্জাতিক মানের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে ইরান: কমান্ডার

পাইলটবিহীন বিমান বা ড্রোন নির্মাণে ইরান বিশ্বমানে উন্নীত হয়েছে বলে জানিয়েছেন ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসির অ্যারোস্পেস ডিভিশনের প্রধান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আমিরআলী হাজিজাদে।

তিনি বলেছেন, ক্ষেপণাস্ত্র প্রযুক্তি রপ্ত করার দিক দিয়েও ইরান অগ্রগামী দেশগুলোর কাতারে রয়েছে। তিনি রোববার এক সামরিক অনুষ্ঠানে বলেন, ড্রোন নির্মাণের দিকে দিয়ে ইরান এতটা উন্নতি অর্জন করেছে যে, বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী সেনাবাহিনীকেও চ্যালেঞ্জ জানাতে সক্ষম হয়েছে। জেনারেল হাজিজাদে বলেন, সামরিক শিল্পে ইরানের আরো অনেক বড় বড় অগ্রগতি রয়েছে যা সময়মতো প্রকাশ করা হবে। তিনি এক্ষেত্রে উদাহরণ হিসেবে ড্রোনের মাধ্যমে ১,৫০০ কিলোমিটার দূরবর্তী শত্রু অবস্থানে হামলা চালানোর সক্ষমতার কথা উল্লেখ করেন।

আইআরজিসির এই কমান্ডার বলেন, ক্ষেপণাস্ত্র প্রযুক্তির দিক দিয়ে ইরান আন্তর্জাতিক মানের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে। তিনি বলেন, অত্যাধুনিক হাইপারসনিক ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র এবং বায়ুমণ্ডলের বাইরে মহড়া দেয়ার মতো ক্ষেপণাস্ত্রের যে তথ্য অতি সম্প্রতি প্রকাশ করা হয়েছে তা নতুন কিছু নয় বরং এসব প্রযুক্তি ইরানের কাছে বহু বছর আগে থেকেই ছিল কিন্তু এতদিন ঘোষণা দেয়া হয়নি।

জেনারেল হাজিজাদে বলেন, হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্র নির্মাণ করে ইরান অন্তত এক প্রজন্ম এগিয়ে গেছে এবং এই ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিহত করার সক্ষমতা অর্জন করতে শত্রদের কয়েক দশক লেগে যেতে পারে।

গত ১০ নভেম্বর ইরান হাইপারসনিক বা শব্দের চেয়ে দ্রুতগামী ক্ষেপণাস্ত্র  তৈরি করার ঘোষণা দেয়।তেহরান জানায়, শত্রুর সবচেয়ে আধুনিক আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ভেদ করে নির্ধারিত লক্ষ্যবস্তুতে নির্ভুলভাবে আঘাত হানতে সক্ষম এই ক্ষেপণাস্ত্র।
খবর পার্সটুডে/এনবিএস/২০২২/একে

news