ইন্দোনেশিয়ায় ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা আড়াইশো পার, আর্থিক সাহায্যের ঘোষণা প্রেসিডেন্টের

হু হু করে বাড়ছে ইন্দোনশিয়ায় (Indonesia Earthquake) ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা। সোমবার তীব্র কম্পনের জেরে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৬৮। এখনও ১৫১ জন নিখোঁজ রয়েছেন বলে জানিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। ভয়াবহ ভূমিকম্পে আহতের সংখ্যা হাজার ছাড়িয়েছে। ইতিমধ্যেই সুনামি সতর্কতাও জারি করা হয়েছে ইন্দোনেশিয়ায়। মৃতদের জন্য ক্ষতিপূরণ দেওয়ার ঘোষণা করেছে ইন্দোনেশিয়ার প্রশাসন।

স্থানীয় প্রশাসনের তরফে জানা গিয়েছে, মৃতদের মধ্যে অধিকাংশই স্কুল পড়ুয়া। সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, স্কুলের নির্দিষ্ট সময় শেষ হয়ে যাওয়ার পরেও অতিরিক্ত সময় নিয়ে পড়াশোনা করছিল খুদেরা। স্কুলে থাকাকালীন সময়েই ভূমিকম্প হওয়ার ফলে পড়ুয়াদের অধিকাংশই বেরতে পারেনি। ফলে বাড়ি চাপা পড়েই মৃত্যু হয়েছে তাদের। সোমবার রাত পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ছিল ১৬২। মঙ্গলবার পুরোদমে উদ্ধারকাজ শুরু হতেই লাফিয়ে বেড়ে যায় এই সংখ্যা। 


ইন্দোনেশিয়ার বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের প্রধান জানিয়েছেন, ২৬৮ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এই সংখ্যাটা আরও বাড়তে পারে বলেই আশঙ্কা উদ্ধারকারীদের। ধ্বংসস্তূপের মধ্যে বহু মানুষ আটকে রয়েছেন ও তাঁদের উদ্ধার করার চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলেই জানিয়েছে সেদেশের বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তর। সকলকে সুস্থভাবে ধ্বংসস্তূপ থেকে বের করে আনা যাবে, এমনটাই আশা করছে স্থানীয় প্রশাসন।  ভূমিকম্পের পরে ইতিমধ্যেই ২৫ বার আফটার শক দেখা গিয়েছে ইন্দোনেশিয়ায়। সেই কারণেই সুনামির আশঙ্কাও থেকেই যাচ্ছে।

মঙ্গলবার ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা ঘুরে দেখেন ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইডোডো। সেখানেই ক্ষতিপূরণের কথা ঘোষণা করেন তিনি। সেই সঙ্গে উদ্ধারকাজে গতি আনতে নির্দেশ দিয়েছেন দেশের প্রেসিডেন্ট। প্রসঙ্গত, রিখটার স্কেলে ৫.৬ মাত্রায় কেঁপে ওঠে ইন্দোনেশিয়ার সিয়ানজুর। তারপরের দিন প্রতিবেশী সলোমন আইল্যান্ডেও কম্পন অনূভূত হয়। প্রাকৃতিক কারণে বরাবরই বেশ বিপজ্জনক অবস্থানে থাকে ইন্দোনেশিয়া। সামান্য প্রাকৃতিক কারণে যেকোনও সময়ে বড়সড় বিপর্যয় নেমে আসে সেদেশে।
খবর সংবাদ প্রতিদিন  news