ইউক্রেন যুদ্ধের জন্য পাশ্চাত্য বহু বছর ধরে প্রস্তুতি নিচ্ছিল: রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী

রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ বলেছেন, ইউক্রেনে যে যুদ্ধ চলছে তা এখন আর ‘হাইব্রিড’ পর্যায়ে নেই বরং তা ‘একটি প্রকৃত যুদ্ধের’ রূপ নিয়েছে। পশ্চিমা দেশগুলো ক্রমাগত মস্কোর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে বলেও তিনি অভিযোগ করেছেন।

দক্ষিণ আফ্রিকা সফররত ল্যাভরভ প্রিটোরিয়ায় এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন। তিনি বলেন, “ইউক্রেনে যা কিছু ঘটছে তা একটি যুদ্ধ। এটি কোনো হাইব্রিড যুদ্ধ নয় বরং প্রকৃত যুদ্ধ। পশ্চিমারা এ যুদ্ধের পরিকল্পনা বহু আগে থেকে করে আসছিল।”

রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ইউক্রেনে বিদ্যমান রুশ ভাষা থেকে শুরু করে সংস্কৃতি পর্যন্ত সবকিছু ধ্বংস করা ছিল এ পরিকল্পনার উদ্দেশ্য। তিনি অভিযোগ করেন, শত শত বছর ধরে ইউক্রেনের রুশ ভাষাভাষি মানুষ তাদের মাতৃভাষায় কথা বলে আসলেও এখন তাদের কাছ থেকে মায়ের ভাষা কেড়ে নেয়ার ষড়যন্ত্র চলছে। 

ল্যাভরভ বলেন, ইউক্রেনে রুশ ভাষার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট যেকোনো ধরনের কথাবার্তা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। আর এসব কিছু করা হচ্ছে পাশ্চাত্যের প্রত্যক্ষ পৃষ্ঠপোষকতায়।

রাশিয়ার শীর্ষ কূটনীতিক এমন সময় এসব অভিযোগ করলেন যখন পোল্যান্ড সরকার জার্মানির তৈরি লিওপার্ড ট্যাংক ইউক্রেনকে দেয়ার জন্য বার্লিনের অনুমতি প্রার্থনা করেছে। রাশিয়া ইউক্রেনকে সমরাস্ত্র দেয়ার ব্যাপারে পাশ্চাত্যকে হুঁশিয়ার করে দিয়ে বলেছে, এ কাজের মাধ্যমে তারা ইউক্রেন যুদ্ধ প্রলম্বিত করছে।

দক্ষিণ আফ্রিকা সফররত রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেছেন, তার দেশ যুদ্ধের শুরুর দিকেই কিয়েভের সঙ্গে সংলাপে বসতে চেয়েছিল। কিন্তু আমেরিকা ও তার ইউরোপীয় মিত্ররা কিয়েভকে সংলাপ থেকে সরিয়ে নিয়েছে।
খবর পার্সটুডে/এনবিএস/২০২৩/একে

news