ইরানের ইসলামী বিপ্লবী গার্ড বিষয়ে ইউরোপের নরম সুরের রহস্য


তিনি গতকাল (সোমবার) ব্রাসেলসে ইউরোপীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সম্মেলনে যোগ দেয়ার অবকাশে সাংবাদিকদের কাছে এই মন্তব্য করেন। বোরেল বলেছেন, আমি আপনাকে পছন্দ করি না বলে সন্ত্রাসী বলে বিবেচনা করতে পারি না!  এ ধরনের সিদ্ধান্ত আদালতের রায় ছাড়া নেয়া সম্ভব নয় বলে তিনি উল্লেখ করেছেন। 

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমির-আব্দুল্লাহিয়ান বলেছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন বা ইইউ তার দেশের বিরুদ্ধে এমন কোনো পদক্ষেপ নিতে চায় না যাতে ইউরোপকে চড়া মূল্য দিতে হয়।

ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসিকে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হিসেবে ঘোষণা করার ক্ষেত্রে আইনগত বাধা আছে বলে ইইউর পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক প্রধান কর্মকর্তা জোসেপ বোরেল ঘোষণা করার পর আমির-আব্দুল্লাহিয়ান এ মন্তব্য করলেন।

ইউরোপীয় পার্লামেন্ট গত বুধবার একটি বিল পাস করে আইআরজিসি’কে সন্ত্রাসী সংগঠনগুলোর কালো তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়ন বা ইইউ এবং এর সদস্য দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানায়। এরপর বৃহস্পতিবার ওই পার্লামেন্ট আরেকটি প্রস্তাব পাস করে তেহরানের ওপর আরো বেশি নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য ইইউ’র প্রতি আহ্বান জানায়। অবশ্য ওই আহ্বান মানা বাধ্যতামূলক নয় জোটের জন্য। 

এটা স্পষ্ট ইউরোপীয় জোট ইরানের সঙ্গে উত্তেজনা আরও বাড়াতে আগ্রহী নয়। এর কারণ ইরানের কঠোর প্রতিক্রিয়ার হুঁশিয়ারি।  ইরানের কর্মকর্তারা বলেছেন, ইউরোপীয় জোট যদি এ ধরনের কোনো হঠকারী পদক্ষেপ নেয় তাহলে ইরানও পাল্টা কঠোর পদক্ষেপ নেবে। এসব পদক্ষেপের মধ্যে ইউরোপের রাষ্ট্রীয় সশস্ত্র বাহিনীগুলোকে সন্ত্রাসী বাহিনী হিসেবে উল্লেখ করে সেসবের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া এবং ইউরোপীয় সরকারগুলোকে সন্ত্রাসের সহযোগী হিসেবে ঘোষণা দেয়াসহ পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণ বিষয়ক চুক্তি এনপিটি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পদক্ষেপ নেয়া হতে পারে বলে ইরান হুমকি দিয়েছে। 

জার্মান রাষ্ট্রীয় বেতার ডয়েচেভেলে ইরানের ইসলামী বিপ্লবী গার্ড বাহিনীকে সন্ত্রাসী বলে উল্লেখ করার প্রচেষ্টার কারণে ইউরোপ-ইরান উত্তেজনা বৃদ্ধি প্রসঙ্গে বলেছে, এ সংক্রান্ত চ্যালেঞ্জে ইউরোপ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চেয়েও অনেক বেশি দুর্বল বা অক্ষম। 

ইরানের ইসলামী বিপ্লবের বিরুদ্ধে পাশ্চাত্য ও তাদের সেবাদাস আঞ্চলিক সরকারগুলোর সাম্প্রতিক প্রচার যুদ্ধসহ বহুমুখী যুদ্ধ একের পর এক ব্যর্থ হওয়ায় সন্ত্রাসের অন্যতম প্রধান দোসর ইউরোপীয় জোট ও পার্লামেন্ট বিপ্লবী গার্ড বাহিনীকে সন্ত্রাসী বলে অপবাদ দেয়ার স্পর্ধা দেখাল। অথচ ইরানের ইসলামী বিপ্লবী গার্ড বাহিনী সন্ত্রাস বিরোধী যুদ্ধে বিশ্বে সবচেয়ে বেশি সাফল্য দেখিয়েছে। সন্ত্রাসী গোষ্ঠী কথিত আইএস বা দায়েশসহ পশ্চিমা মদদপুষ্ট তাকফিরি গোষ্ঠীগুলোর সন্ত্রাসের হাত থেকে ইউরোপ ও পাশ্চাত্যের চলমান বা বর্তমান নিরাপত্তাও অনেকাংশে ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর কাছে ঋণী। 
খবর পার্সটুডে/এনবিএস/২০২৩/একে

news