হিজাব পোড়াচ্ছেন ইরানি তরুণীরা, ক্ষোভের দাবানল একের পর এক শহরে

 ঘৃণা, ক্ষোভ, রাগ ক্রমশ দাবানলের (protest) আকার নিচ্ছে ইরানে। শহরে শহরে মেয়েদের (women) জমায়েত সোমবার থেকেই শুরু হয়েছে। বুধবার তা অন্যমাত্রা নিল। ইরানের (Iran) কারমেন শহরে নিজেদের গা থেকে হিজাব (hijab) ছেড়ে রাস্তায় ফেলে তাতে আগুন দিয়ে দিলেন তাঁরা।
মাহশা আমিনি (Mahsa Amini) নামের এক তরুণীর মৃত্যু ঘিরে উত্তাল ইরান। অভিযোগ, হিজাব পরেননি বলে এই তরুণীকে থানায় তুলে নিয়ে গিয়ে পিটিয়ে মেরেছে পুলিশ।
জানা গেছে, ইরানের কুর্দিস্তান থেকে দেশের রাজধানী তেহরানে যাচ্ছিলেন ওই তরুণী। সেখানে তাঁর কয়েকজন আত্মীয়ের বাড়ি। তাঁদের সঙ্গেই দেখা করতে যাচ্ছিলেন তিনি। সেই সময়ই আচমকা ইরানের পুলিশের চোখে পড়ে যান ওই তরুণী। সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয় থানায়। তারপর পিটিয়ে মারা হয় বলে অভিযোগ।
এই খবর ছড়িয়ে পড়েছিল হু হু করে। তারপর প্রতিবাদ ক্রমশ গণসংক্রমণের আকার নিচ্ছে। ইতিমধ্যেই সরকারি সূত্রে জানা গিয়েছে, পুলিশের সঙ্গে সংঘাতে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। তবে মানবাধিকার সংগঠনগুলির দাবি এখনও পর্যন্ত সাত জনের মৃত্যু হয়েছে।
ইরানের একাধিক সংবাদমাধ্যমের দাবি, ২০১৯ সালে গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে যে তীব্র আন্দোলন করেছিল, এবার তাকেও ছাপিয়ে যাচ্ছে। বহু জায়গায় জখম হয়েছে পুলিশও। সব মিলিয়ে উত্তাল ইরান। আর সেই সুনামি তৈরি করছেন মহিলারাই।

খবর পার্সটুডে/এনবিএস/২০২২/একে news