ফের দেশের দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১০ হাজার পার, একদিনে মৃত্যু ৩৬ জনের

করোনা ভাইরাসের সঙ্গে এখনও শেষ হয়নি লড়াই। দৈনিক পরিসংখ্যানেই তা স্পষ্ট। দু-চারদিন কোভিড গ্রাফ খানিকটা নিম্নমুখী হলেও হঠাৎই তা লাফিয়ে বাড়তে থাকে। গত ২৪ ঘণ্টাতেই যেমন ফের ১০ হাজারের গণ্ডি ছাড়াল আক্রান্তের সংখ্যা। তবে লাগাতার টিকাকরণে জোর দেওয়ায় ধীরে ধীরে কমছে অ্যাকটিভ কেস।

বুধবার স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা (Coronavirus) আক্রান্ত হয়েছেন ১০,৬৭৭ জন। গতকাল যে সংখ্যাটা নেমে গিয়েছিল ৯ হাজারের নিচে। সংক্রমণ বাড়লেও অবশ্য গত ২৪ ঘণ্টায় খানিকটা কমেছে অ্যাকটিভ কেস। দেশের সক্রিয় রোগী বর্তমানে ৯৬ হাজার ৪৪২ জন। গোটা দেশে অ্য়াকটিভ কেসের হার কমে হয়েছে ০.২২ শতাংশ। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের বুলেটিন অনুযায়ী, ভারতে একদিনে করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন ৩৬ জন। দেশে এখনও পর্যন্ত কোভিডে মোট মৃতের সংখ্যা ৫ লক্ষ ২৭ হাজার ৪৫২।

দেশের বেশিরভাগ রাজ্যে সংক্রমণে লাগাম টানা সম্ভব হলেও এখনও চিন্তায় রাখছে দিল্লি ও মুম্বইয়ের করোনা গ্রাফ। একদিনে বাণিজ্যনগরীতে আক্রান্ত ১,৯১০ জন। মারণ ভাইরাসের বলি ৭ জন। বাড়ছে হাসপাতালে ভরতির সংখ্যাও। এদিকে দিল্লিতে একদিনে সংক্রমিত ৯৫৯ জন। গত এক মাসে রাজধানীতে বেড়েছে জ্বরে আক্রান্তের সংখ্যাও।

তবে এসবের মাঝে মারণ ভাইরাসের সঙ্গে লড়াইয়ে শক্তি জোগাচ্ছেন করোনাজয়ীরাই। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, এখনও পর্যন্ত দেশে ৪ কোটি ৩৭ লক্ষ ৪৪ হাজার ৩০১ জন করোনা থেকে মুক্ত হয়েছেন। সুস্থতার হার ৯৮.৫৯ শতাংশ। স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য জানাচ্ছে, দেশে করোনার টিকার ডোজ দেওয়া হয়েছে ২১০ কোটি ৫০ লক্ষের বেশি। গত ২৪ ঘণ্টাতেই টিকা পেয়েছেন ২৭ লক্ষর বেশি। জোরকদমে চলছে প্রাপ্তবয়স্কদের বিনামূল্যে বুস্টার ডোজ দেওয়ার অভিযানও। টিকাকরণের পাশাপাশি করোনা রোগী চিহ্নিত করতে জোর দেওয়া হচ্ছে টেস্টিংয়েও। গতকাল দেশে ৪ লক্ষ ৭ হাজার ৯৬ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে।সংবাদ প্রতিদিন  /এনবিএস/২০২২/একে news