বয়স ১০৬, টানা ৬১ বার রেল ইউনিয়নের নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক কানহাইয়ালাল


চাকরি থেকে অবসর নিয়েছেন ১৯৮১ সালে। তারপর কেটে গিয়েছে ৪১টি বছর। কিন্তু কর্মক্ষেত্রের সঙ্গে সম্পর্ক যেমন ছিল, তেমনটিই আছে। ১০৬ বছর বয়সে (106-year-old) পৌঁছেও উত্তর-পূর্ব রেলওয়ে মজদুর ইউনিয়নের সবচেয়ে সক্রিয় সদস্য তিনি। এক-দু’বার নয়, ৬১ বার ওই ইউনিয়নের নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক (trade union leader) উত্তরপ্রদেশের গোরক্ষপুরের বাসিন্দা কানহাইয়ালাল গুপ্তা। 
আরও আশ্চর্যের, ১০৬ বছরে পা রাখা কানহাইয়ালালের ভূমিকা মোটেই আলঙ্কারিক নয়। বরং নিয়মিত সংগঠনের অফিসে বসেন। কর্মচারীদের দাবিদাওয়া নিয়ে অফিসারদের ডেপুটেশন দেওয়া, চিঠি লেখা, সভা-সমিতিতে ভাষণ দেওয়া, বয়সের কারণে কিছুই বাদ নেই। হাসতে হাসতে বলেন, ‘বয়স, ওটা তো একটা সংখ্যা মাত্র।’ তাঁর ইউনিয়ন এনইআরএমইউ-এর সদস্যরা লিমকা বুক অফ রেকর্ডস এবং গিনেস বুকে (Guinness Book of Records) বিশ্বের প্রাচীনতম সক্রিয় ট্রেড ইউনিয়ন নেতা হিসাবে তাঁর নাম তোলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

এই বয়সেও সক্রিয় থাকার রহস্য কী? কানহাইয়া লালের কথায়, জীবন যাপনে শৃঙ্খলা এবং নৈতিকতা রক্ষা, দুটোই পেয়েছেন প্রবাদপ্রতীম রাজনীতিক জয়প্রকাশ নারায়ণের সান্নিধ্যে থেকে। জরুরি অবস্থার সময় বিহারের মাটি থেকে জয়প্রকাশ ইন্দিরার স্বৈরাচারি সরকারের অবসান ঘটাতে নৈতিকতাকে হাতিয়ার করেছিলেন। বলেছিলেন, স্বৈরতন্ত্রের থেকে বড় বিপদ আর কিছু নেই। যারা এর অবসান চান তাঁরা বিভেদ ভুলে একজোট হোন। তরুণ কানহাইয়ালালের কানে বেজেছিল কথাগুলি। নানা অবকাশে জয়প্রকাশের কাছাকাছি গিয়েছেন। দেখেছেন তাঁর নৈতিক শক্তির জোর।
১০৬ বছরে পৌঁছে সেই নৈতিক শক্তিই কানহাইয়ালালকে উজ্জীবিত করে। এনইআরএমইউ সদস্যদের মাঝখানে নিজেকে দেখতে আগ্রহী তিনি। বলেন, ‘এনইআরএমইউ অফিস আমার একমাত্র বাসস্থান আর সদস্যরা পরিবারের অংশ।’

রেলে যোগ দেন ১৯৪৬ সালে। কিছুদিনের মধ্যেই এনইআরএমইউ-র সঙ্গে যুক্ত হন। কয়েক বছর পর থেকে টানা সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে আসছেন।
নিজের জন্যও লড়াই কম করতে হয়নি তাঁকে। সংগঠন করায় চারবার চাকরি থেকে বরখাস্ত হতে হয়। এমনকি একবার প্রায় এক মাসের জন্য জেলে পাঠানো হয়েছিল। তারপরও ট্রেড ইউনিয়নের কাজ থেকে দূরে সরে যাননি। মামলা মোকদ্দমার পাশাপাশি লড়াই করেছেন পথে, মাঠে-ময়দানে।
এনইআরএমইউ সদস্যদের কথায়, জীবনযাপনে শৃঙ্খলা রক্ষাই কানহাইয়ালালের দীর্ঘ সুস্থ জীবনের রহস্য। এখনও সারাদিন, এমনকী কোনও কোনও দিন অনেক রাত পর্যন্ত কাজ করেন।খবর দ্য ওয়ালের /২০২২/এনবিএস/একে
  news