‘ভুলেও ইউক্রেনে পরমাণু হামলা নয়’, পুতিনকে স্পষ্ট বার্তা জিনপিংয়ের

 ক্রমশই চাপ বাড়ছে রাশিয়ার (Russia) উপরে। গত ফেব্রুয়ারি থেকে ইউক্রেনে সামরিক অভিযান চালাচ্ছে রাশিয়া। শুরুর দিকে সফলতা পেলেও একের পর এর অভিযানে ধাক্কা খেয়েছে রুশ বাহিনী। এই পরিস্থিতিতে ইউক্রেনে পরমাণু হামলার হুমকি দিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন (Vladimir Putin)। এরপর থেকেই বিশ্বজুড়ে সমালোচিত হতে হচ্ছে মস্কোকে। রবিবার জার্মানির সঙ্গে একযোগে পুতিনকে কড়া বার্তা দিলেন চিনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং (Xi Jinping)। প্রসঙ্গত, এই প্রথম প্রকাশ্যে রাশিয়ার বিরদ্ধে এমন বার্তা দিল চিন।

জার্মানির চ্যান্সেলর ওলাফ শোলৎজের সঙ্গে বেজিংয়ে বৈঠক করেছেন জিনপিং। আর তারপর সেই বৈঠকশেষে এমনটাই জানালেন শোলৎজ। তাঁকে বলতে শোনা যায়, ”প্রেসিডেন্ট জিনপিং ও আমি একমত, পরমাণু হামলা হলে তা হবে অত্যন্ত দায়িত্বজ্ঞানহীন এক কাজ। পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করলে রাশিয়া কিন্তু লক্ষণরেখা অতিক্রম করে ফেলবে যেটা সমস্ত দেশ মিলে তৈরি করেছিল।”

সেই সঙ্গে তিনি কার্যত হুঁশিয়ারির সুরেই বলেন, ”চিনা সরকার, জিনপিং ও আমি এটা ঘোষণা করতে চাই যে, এই যুদ্ধে যেন কোনওভাবেই পারমাণবিক অস্ত্রের ব্যবহার না হয়। কেননা তার ফলে এতদিনের সব প্রয়াস ব্যর্থ হয়ে যাবে।” এদিকে চিনের সরকারি সংবাদমাধ্যমেও এই বিষয়ে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, চিন ও জার্মানি দুই দেশই এই ধরনের হুমকির বিরোধিতা করছে।

গত মাসেই পুতিনের এহেন হুমকি নিয়ে মুখ খুলেছিলেন বাইডেন। মার্কিন সংবাদমাধ্যম CNN-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বাইডেন বলেন, “আমেরিকা তৈরি। ইউক্রেনে সমস্ত সম্ভাব্য পরিস্থিতির কথা ভেবে রাখা হয়েছে। আমাদের জবাবও তৈরি। এনিয়ে পেন্টাগনকে কিচ্ছু জিজ্ঞেস করার প্রয়োজন নেই। ইউক্রেনে পরমাণু হামলা হলে আমরা কী করব, না করব সেই বিষয়ে এখনই মন্তব্য করা খুব অসমীচীন হবে।”

কিন্তু পুতিন সম্প্রতি জানিয়েছিলেন, আপাতত পরমাণু হামলা চালাবে না রাশিয়া। একটি আলোচনাসভায় পুতিনকে জিজ্ঞাসা করা হয়, ইউক্রেনে কি পরমাণু বোমা ফেলবে রাশিয়া? উত্তরে পুতিন বলেছেন, “আমার মনে হয় না তার দরকার আছে। রাজনৈতিক বা সামরিক, কোনও দিক থেকেই ইউক্রেনে পরমাণু হামলা চালানোর প্রয়োজন নেই।” পুতিনের মতে, আমেরিকা-সহ অন্যান্য দেশগুলি আসলে রাশিয়ার সম্পর্কে বদনাম ছড়াতে চাইছে। সেই জন্যই আন্তর্জাতিক মহলে এই গুজব ছড়িয়ে পড়ছে যে, ইউক্রেনে পরমাণু হামলা চালাতে চলেছে রাশিয়া।
সংবাদ প্রতিদিন /এনবিএস/২০২২/একে news