বিদায় রানি, উইন্ডসর প্রাসাদে স্বামীর পাশেই সমাহিত এলিজাবেথ দ্বিতীয়

চোখের জলে রানি এলিজাবেথ দ্বিতীয়কে বিদায় জানাল ব্রিটেন। সোমবার রাতে উইন্ডসর প্রাসাদে তাঁর প্রয়াত স্বামী ডিউক অফ এডিনবরা ফিলিপের পাশে সমাহিত করা হয় রানিকে। এর আগে সেন্ট জর্জেস চ্যাপেলে প্রার্থনা অনুষ্ঠানের সময় তাঁর কফিনের উপর থেকে রাজমুকুট এবং রাজদণ্ড সরিয়ে নেওয়া হয়।

গতকাল লন্ডনের (London) ওয়েস্টমিনস্টার অ্যাবেতে রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের (Queen Elizabeth) অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার শেষে গোটা ব্রিটেনজুড়ে নেমেছে শোকের ছায়া। এদিন জাতীয় সংগীত বেজে ওঠার আগে রানিকে শেষশ্রদ্ধা জানাতে দুই মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। এরপরই তাঁর কফিন উইন্ডসর ক্যাসলের দিকে নিয়ে যাওয়া হয়। তারপরই ওয়েস্টমিনস্টার অ্যাবের দরজা বন্ধ হয়ে যায়। বিগত কয়েক দিন ধরে হাজার হাজার মানুষ রানিকে শেষশ্রদ্ধা জানাতে যে দীর্ঘ অপেক্ষা করেছেন, তাঁর সমাপ্তি হয় এদিন।


এদিন ওয়েস্টমিনস্টার হল থেকে রানির কফিন বিশাল শোভাযাত্রার পর ওয়েস্টমিনস্টার অ্যাবিতে নিয়ে আসা হয়। সেখানে প্রায় দু’হাজার মানুষ এক শেষকৃত্যে অংশ নেন। যাঁদের মধ্যে ছিলেন বহু রাষ্ট্রের এবং সরকারের প্রধান ও প্রতিনিধিরা। সেখান থেকে বিশাল শোকযাত্রা কফিন নিয়ে ওয়েলিংটন আর্চের দিকে যাত্রা করে। এরপর রানির কফিন শবযানে উইন্ডসর প্রাসাদের দিকে যাত্রা করে। রানির কফিন নিয়ে  শোকমিছিলটি উইন্ডসরের দীর্ঘ রাস্তা পেরিয়ে সেন্ট জর্জেস চ্যাপেলে যায়। সেখানে রানির স্মরণে আরেকটি প্রার্থনায় যোগ দেন প্রায় আটশো মানুষ। সন্ধ্য সাড়ে সাতটায় (স্থানীয় সময়) রাজপরিবারের সদস্যরা সেন্ট জর্জেস চ্যাপেলে রানিকে তাঁর স্বামীর পাশে সমাহিত করেন।

চ্যাপেলে প্রার্থনা শেষে প্রায় ২০০ বছরের রাজকীয় সমাধিকক্ষে রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের মরদেহ নামানো হয়। এর আগে সেন্ট জর্জেস চ্যাপেলে আনুষ্ঠানিকভাবে রানির কফিনের ওপর থেকে রাজমুকুট এবং রাজদন্ড সরিয়ে নেওয়া হয়। এগুলি আবার টাওয়ার অফ লন্ডনে ফেরত যাবে। তবে আপাতত সেগুলো ডিন অফ উইন্ডসরের কাছে দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, ৮ সেপ্টেম্বর স্কটল্যান্ডের বালমারোল প্রাসাদে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ (Elizabeth II)। সোমবার এডিনবরায় সেন্ট জাইলস ক্যাথিড্রালে শেষবারের জন্য রানিকে বিদায় জানান হাজার হাজার মানুষ। স্কটিশ রাজধানীর পথে রানির কফিনের সঙ্গে পা মিলিয়েছিলেন তাঁর চার সন্তান-রাজা তৃতীয় চার্লস, প্রিন্সেস অ্যান, প্রিন্স অ্যান্ড্রু ও প্রিন্স এডওয়ার্ড। হলিরুড প্যালেস থেকে ক্যাথিড্রালে নিয়ে আসা হয় রানির দেহ। প্রিয় রানির কফিন একবার চোখের দেখা দেখতে এডিনবরার রাস্তার দু’পাশে নেমেছিল মানুষের ঢল। স্কটল্যান্ডে অনুষ্ঠান শেষে গত মঙ্গলবার লন্ডন পৌঁছয় কফিন। রাজধানীতে রাজা তৃতীয় চার্লস ও ‘কুইন কনসর্ট’ ক্যামিলা গ্রহণ করেন সেই কফিন। তারপর এদিন সমাহিত করা হয় রানিকে।

সংবাদ প্রতিদিন/এনবিএস/২০২২/একে news