কর্নাটকের পরে পাঞ্জাব, করোনা-আতঙ্কে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করল সরকার


 বর্ষশেষে ফের একবার উদ্বেগ বাড়ছে করোনা নিয়ে। চিনে বাঁধভাঙ্গা সংক্রমণের ঢেউ এদেশেও আছড়ে পড়ার উপক্রম দেখা দিয়েছে।  ভারতেও যাতে ফের একবার করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে না পড়ে, তার জন্য অতি তৎপর কেন্দ্র। একের পর এক বৈঠকে বসছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক। করোনা নিয়ে এই উদ্বেগজনক পরিস্থিতির মধ্য়েই জল্পনা শুরু হয়েছে, ফের কি বাধ্যতামূলক করা হবে মাস্ক পরার নিয়ম? কর্নাটকে ইতিমধ্যেই মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে, এবার সে পথে হাঁটল পাঞ্জাবও।
পাঞ্জাবের স্বাস্থ্য দফতরের তরফে জানানো হয়েছে, কঠোরভাবে সংক্রমণ মোকাবিলার চেষ্টা করা হবে। রাস্তাঘাটে, গণপরিবহনে মাস্ক পরতেই হবে। কারও উপসর্গ দেখা দিলে দ্রুত টেস্ট করিয়ে আইসোলেশনে থাকতে হবে। রাজ্যে করোনা পারীক্ষা আরও বাড়ানো হচ্ছে বলে জানানো হয়েছে।
রাজ্যের কোভিড পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠক করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী ভাগবন্ত মান। করোনা মোকাবিলায় একটি কন্ট্রোল রুম তৈরিরও সিদ্ধান্তও নেন তিনি। সকলকে মাস্ক পরার আর্জি জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। সেই সঙ্গে শারীরিক দূরত্ববিধি মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন 
ভারতীয় গবেষকদের দাবি, চিনে করোনার যে প্রকোপ দেখ গিয়েছে, তার কারণ হল টিকাকরণের কম হার ও চিনা নাগরিকদের কম রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। করোনা সংক্রমণের শুরু থেকেই চিনে জিরো কোভিড নীতি অনুসরণ করা হলেও, সে দেশে করোনা টিকাকরণের হার তুলনামূলকভাবে অনেকটাই কম। এরফলে সাধারণ মানুষদের মধ্যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে ওঠেনি।  
তবে ভারতীদের মধ্যে হাইব্রিড ইমিউনিটি (Hybrid Immunity) বা মিশ্র রোগ প্রতিরোধ তৈরি হয়েছে যা করোনার যে কোনও প্রজাতিকে রুখে দিতে সক্ষম। এর কারণ হল, টিকাকরণ খুব ভাল ভাবে হয়েছে ভারতে। তাছাড়া মানুষজনের নিজস্ব রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বেড়ে গেছে অ্য়ান্টিবডি তৈরির কারণে। একদিকে যেমন ভ্য়াকসিনের ডোজে অ্য়ান্টিবডি তৈরি হয়েছে শরীরে, তেমনিই, করোনার নানা প্রজাতিই সংক্রমণ ছড়িয়েছে ভারতে, সেই থেকেও অ্য়ান্টিবডি তৈরি হয়েছে। এই কারণেই হাইব্রিড ইমিউনিটি তৈরি হয়ে গেছে।

খবর দ্য ওয়ালের /এনবিএস/২০২২/একে
 

news